1. admin@dailynewsbangladesh24.com : admin :
শিরোনাম :
আমরা নাগরিক হতে পারি নি বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১ আহত ৩ বরিশালের নলছিটিতে সন্তানসহ টাকা ও স্বর্ন নিয়ে উধাও প্রবাসীর স্ত্রী শামীম ওসমানের সমাবেশে মিছিল নিয়ে যুবলীগ নেতা মুন্নার যোগদান বাংলাদেশ কমিউনিটি ডাবলিন কমিটি গঠন সংক্রান্ত রোড ম্যাপ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে ২৯ শে আগস্ট। প্রবাসী সাংবাদিকদের সাথে (আবাই) সভাপতি প্রার্থী সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমানের সৌজন্য সাক্ষাৎ। আয়ারল্যান্ডে প্রবাসী বাংলাদেশীদের পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন। ছাত্রকে বিয়ে করা সেই শিক্ষিকার লাশ উদ্ধার, স্বামী আটক প্রবাসীদের পাসপোর্ট সংশোধনী এবং এনআইডি কার্ড দূতাবাসের মাধ্যমে প্রদানের দাবি জানিয়েছে আয়েবাপিসি বাস থেকে স্বামীকে ফেলে দিয়ে নারীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ, অভিযুক্ত পাঁচজন গ্রেফতার

রাজাপুরে ব্যক্তিমালিকানা জমিতে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর নির্মান কাজের অভিযোগ, বালু ফেলায় নষ্ট হল ফসল, প্রতিবাদ কৃষকদের

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২১
  • ২৩৮ বার পঠিত

মোঃ জিলান খান, স্টাফ রিপোর্টারঃ

ঝালকাঠির রাজপুরের ৬৭ নং উত্তমপুর মৌজার উত্তামপুর গ্রামে ব্যক্তিমালিকানা জমিতে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর নির্মানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ব্যক্তিমালিকানা জমিতে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর নির্মান না করার জন্য জমির মালিক ২০/২৫ টি দরিদ্র কৃষক পরিবারের অর্ধশত নারী-পুরুষ “পূর্ব পরুষের সম্পত্তিতে আশ্রয়ণ প্রকল্প চলবে না” ব্যানারে প্রতিবাদ সমাবেশ পালন করেন। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মজিবুর রহমান আকন্দ, কুলসুম বোগম, শাহাভানু, রিজিয়া বেগম, আঃ জলিল মাষ্টার, শরীফ সোহেল, আমিনুল ইসলাম বাবুল ও বিউটি বেগম প্রমুখ। এ সময় বিক্ষুদ্ধরা জমিতে বালু ফেলার পাইপ খুলে ফেলে কাজ বন্ধ করে দেন। বক্তারা বলেন, উক্ত জমি ১৯৫৬ ইং সনে ভুল বসত সরকারের ১ নং ক্ষতিয়ানে রেকর্ড হয়েছিল কিন্তু পুর্বে আর এস ও সি এস পর্চায় আমাদের বাপ-দাদাদের নামে রেকর্ড ছিল, তারপরও আমরা ঝালকাঠি জেলা জজ আদালতে ১২/৬/২০১৭ ইং তারিখ মামলা করেছি, যার নং ৩৬/১৭ (রাজা)। আমাদের আর এস খতিয়ান নং- ১০৯২, ১০৮২,১০৬২,০৩৬,৯৮৭,৯৯৭, ও ৯৯১। এবং দাগ নং- ১৮৮০,১৯৩৫,১৯৩৬, ১৯৩০,১৮২৩১৯২০ ও ১৯২২। জমির পরিমান ১একর ৩৫শতাংশ। কৃষকরা আরো জানান, ওই জমিতে মরিচ, মুগডাল, মিষ্টি আলু, বরবটিসহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় দুই লক্ষাধীক টাকার ফসলে বালু ফেলে নষ্ট করা হয়েছে । কাজ বন্ধ করে প্রতিবাদ সভা করার খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মোক্তার হোসেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) অনুজা মন্ডল, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মামুন অর রশিদসহ প্রশাসনের প্রায় ১০/১৫ জন লোক ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন এবং ওই জমির মালিকানা দাবিদার ক্ষতিগ্রস্থ উপস্থিত লোকজনকে প্রশাসন জানান, এই জমি ১৯৫৬ ইং সন থেকে সরকারের খাস খতিয়ানের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তাই আদালতের কোন আদেশ ছাড়া প্রকল্পের কাজ বন্ধ করা যাবে না। আপনাদের কোন কথা থাকলে আমার (ইউএনও) অথবা সহকারী কমিশনার, ভুমি, রাজাপুর অফিসে আসুন আমরা আপনাদের কথা শুনবো। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মোক্তার হোসেন বলেন, ওই জমির দাবিদার কৃষকরা দীর্ঘ বহু বছর জমির খাজনা পরিশোধ করেনি এমনকি এসএ ও বিএস রেকর্ডও তাদের নামে নেই। এসএ ও বিএস রেকর্ড সরকারের নামে হয়েছে। কৃষকরা মামলা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © Dainik News Bangladesh 24
Theme Customized By Shakil IT Park